পরিচালনা পর্ষদ


 

জনাব মাহফুজুর রহমান, এমপি, চেয়ারম্যান

Email: mitha.mahafuz@gmail.com

মাহফুজুর রহমান ১৯৭০ সালের ডিসেম্বরে চট্টগ্রামের সন্দ্বীপের একটি অত্যন্ত সম্মানিত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন পিতা  মো মুস্তাফিজুর রহমান (সাবেক সংসদ সদস্য ও বিশিষ্ট ব্যাংকার) ছিলেন।তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এম.কম (মার্কেটিং) ডিগ্রি অর্জন করেন। জনাব মাহফুজুর রহমান প্রতিষ্ঠার পর প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক হিসাবে বর্তমানে তিনি রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডের সাথে যুক্ত হন এবং বর্তমানে তিনি কোম্পানির চেয়ারম্যান।তিনি একজন বিখ্যাত সাংবাদিক। তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলির মধ্যে রয়েছে রূপকথ বিজ্ঞাপন (প্রাঃ) লিমিটেড, নাজ রঙ প্রসেস অ্যান্ড প্রিন্ট লিমিটেড, কমিউনিকেশন এক্সপ্রেস এবং স্মার্ট এক্সপ্রেস।জনাব মাহফুজুর রহমানও অনেক সামাজিক সংগঠনের সাথে নিজেকে নিযুক্ত আছেন। তিনি দিপবন্ধু মুস্তাফিজুর রহমান কল্যাণ ট্রাস্টের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান,সন্দ্বীপ ইয়ুং এসোসিয়েশনের প্রধান পৃষ্ঠপোষক। রফিকুল ইসলাম ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে তিনি জীবন বীমা কোম্পানির মধ্যে শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান হিসেবে ভূষিত হন। তিনি ব্যবসা উদ্দেশ্যে অস্ট্রেলিয়া, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, ব্যাংকক, ইন্দোনেশিয়া, ভারত, নেপাল, গ্রেট ব্রিটেন ভ্রমণ করেন।

 

মিসেস মাহমুদা মাহফুজ, ভাইস চেয়ারম্যান

জনাব মাহফুজুর রহমানের স্ত্রী মিসেস মাহমুদ মাহফুজ  ১৯৭৪  সালে ঢাকায় একটি সম্মানিত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতিতে এম.এ. অর্জন করেন। মিসেস মাহমুদা মাহফুজ রুপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডের একজন স্পনসর ডিরেক্টরদের সাথে নিযুক্ত আছেন। তিনি রূপকথা বিজ্ঞাপন (প্রাঃ) লিমিটেডের চেয়ারম্যান।

 

জনাব আবদুল আজিম, স্পনসর ডিরেক্টর 

আব্দুল মোতাদিরের পুত্র জনাব আবদুল আজিম, ১৯৫৪ সালে চট্টগ্রামের সন্দ্বীপের একজন সম্মানিত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি বুয়েট থেকে বি.এসসি ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডের পৃষ্ঠপোষক পরিচালক। এখন তিনি অস্ট্রেলিয়ায় অবস্থান করছেন।


   

 

মিসেস সোজিয়া আহমেদ সোনি, স্পনসর ডিরেক্টর

সাজিয়া সুলতানা সোনি মৃত আহমদ আলী কন্যা ১৯৭৭ সালে ঢাকার একটি অত্যন্ত সম্মানিত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। সোজিয়া সুলতানা সোনি রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোং লিমিটেডের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকেই তার সাথে নিযুক্ত।

 

 

 জনাব আব্দুল্লাহ জামিল মতিন, স্পনসর ডিরেক্টর

জনাব আব্দুল্লাহ জামিল মাতিন এমবিএ, জনাব আবদুল মতিনের ছেলে ১৯৮০ সালে চট্টগ্রামে সন্দ্বীপের একটি অত্যন্ত সম্মানজনক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি অস্ট্রেলিয়ার সিডনি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতি ডিগ্রি অর্জন করেন এবং নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিএ  (ফাইন্যান্স)অর্জন করেন।তার শিক্ষা সমাপ্তির পর তিনি ব্যবসায়িক কর্মজীবন শুরু করেন এবং একটি প্রখ্যাত ব্যবসায়ী ব্যক্তিত্ব হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন। জনাব আব্দুল্লাহ জামিল মতিন রুপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডের প্রতিষ্ঠাতা ডিরেক্টর হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকেই এবং বর্তমানে তিনি কোম্পানির বোর্ড অডিট কমিটির চেয়ারম্যান।. তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলি মধ্য আধুনিক ডাইং ও স্ক্রিন প্রিন্টিং লিমিটেড, ফিউচার থ্রেড লিমিটেড, গ্লোবাল ইনভেস্টমেন্ট কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড, নরসিংদী হ্যাচারি অ্যান্ড ফিশারিজ লিমিটেড এবং গ্লোবাল ফার্নিশিং। তিনি ব্যবসার উদ্দেশ্যে অনেক দেশ ভ্রমণ করেন।

জনাব এ.জে. মাতিন অস্ট্রেলিয়ার আর্থিক সেবা ইনস্টিটিউটের সিনিয়র অ্যাসোসিয়েট এবং বাংলাদেশ অর্থনীতি এসোসিয়েশনের জীবন সদস্য। তিনি ঢাকা ক্লাব লিমিটেডের সদস্য এবং এমবিএ ক্লাব লিমিটেডেরও সদস্য

.

 

 Ben afrozমিসেস বেন আফরোজ, স্পনসর ডিরেক্টর

সিরাজুল ইসলামের স্ত্রী মিসেস বেন আফরোজ, ১৯৬৩ সালে লক্ষ্মীপুরের একজন সম্মানিত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। মিসেস বেন আফরোজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে এম.এ ডিগ্রি লাভ করেন। রুপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কো লিমিটেডের সাথে তিনি প্রারম্ভিক পরিচালক হওয়ার সময় থেকেই তার সাথে নিযুক্ত হন। তার ব্যবসার ফার্মটি ওরিয়েন্ট টেলার্স এবং ফ্যাব্রিক রয়েছে।

 md alamgirজনাব মোঃ আলমগীর, ডিরেক্টর

আব্দুল মানফের পুত্র মো আলমগীর ১৯৪৯  সালে চট্টগ্রামের সন্দ্বীপের একটি প্রখ্যাত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।মোঃ আলমগীর একজন সেবা ধারক প্রদানকারী।তাঁর শিক্ষা সমাপ্তির পর মোঃ আলমগীর রূপালী বীমা কোম্পানী লিমিটেডের সাথে যোগ দেন এবং বর্তমানে তিনি রূপালী ইন্সুরেন্স কো। লিমিটেডের ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর। তিনিও বীমা স্ক্রটারের একটি মহান সম্ভাব্য ব্যক্তিত্ব।

 

 

 Monirul Hasan Khan

মো:মনিরুল হাসান খান, ডিরেক্টর

জনাব মোঃ মোজাম্মেল হোসেন খানের পুত্র জনাব মো:মনিরুল হাসান খান ১৯৬৮ সালে চট্টগ্রামের সন্দ্বীপের একটি সম্মানিত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি মৎস্য বিভাগের উপর এমএসসি লাভ করেন। তিনি একজন প্রখ্যাত ব্যবসায়ী ও সমাজকর্মী। তিনি রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এবং গ্লোবাল ইনভেস্টমেন্ট কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেডের একজন স্পনসর ডিরেক্টর।

 

 

 

পরিচালক মোহাম্মদ আমিরুল ইসলাম, ডিরেক্টর

মোহাম্মদ আমিরুল ইসলাম,রহিম বক্স হাওলাদারের ছেলে অভিজাত মুসলিম পরিবার জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৫৬ সালে ভোলার বরিশালে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ঢাকার ইউিনভার্সিটি থেকে এম.এ ডিগ্রি সম্পন্ন করেন এবং তার ব্যবসা শুরু করেন। তাঁর ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলির মধ্যে রয়েছে বোনাজেটেক্স লিমিটেড, রিলায়েন্স ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল এবং মিঠু কারপেটস। বর্তমানে তিনি কোম্পানির ভাইস চেয়ারম্যান।

 

 

ইঞ্জিনিয়ার মো: দেওয়ান নুরুজ্জামান, ডিরেক্টর

ইঞ্জিনিয়ার মো: দেওয়ান নুরুজ্জামান, দেওয়ান সাফুরউদ্দিনের ছেলে নারায়ণগঞ্জে একটি প্রখ্যাত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৭৯ সালে বুয়েট থেকে বিএসসি সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং অর্জন করেন। শিক্ষার পর তিনি সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং উপর চাকরি শুরু করেন। তিনি আধুনিক ডাইং ও স্ক্রিন প্রিন্টিং লিমিটেডের পরিচালক, গ্লোবাল ইনভেস্টমেন্ট কো অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড এবং গ্লোবাল ফার্নিশিং ডিরেক্টর।

 

 

জনাব আবদুল মতিন, বিকল্প ডিরেক্টর আবদুল আজিম

আব্দুল আব্দুল মোখতারীর এর পুত্র জনাব আব্দুল মতিন ১৯৪৪ সালে চট্টগ্রামের সন্দ্বীপের একটি অত্যন্ত সম্মানিত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৬৭ সালে টেক্সটাইল রসায়ন বিভাগে ডিপ্লোমা এবং ইউএসএ থেকে টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। তাঁর শিক্ষা সমাপ্ত করার পর তিনি তাঁর ব্যবসায়িক কর্মজীবন শুরু করেন এবং একটি প্রখ্যাত ব্যবসায়ী ব্যক্তিত্ব হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হন। রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডের পরিচালক পরিষদে নিয়োগ হয় তাকে পরিচালক মো আব্দুল মতিনের বড় ভাই জনাব আবদুল আজিমের বিকল্প পরিচালক হিসেবে তাকে নিয়োগ করেছিলেন।

তার ব্যবসায়িক সংস্থাগুলি উত্তর জেনারেল ইনস্যুরেন্স কো। লিমিটেড, আধুনিক ডাইং ও স্ক্রিন প্রিন্টিং লিমিটেড, মেট্রোপলিটন মেডিকেল সেন্টার লিমিটেড, আধুনিক টেক্সটাইল মিলস, নরসিংদী হ্যাচারি এবং ফিশারীজ লিমিটেড, গ্লোবাল ইনভেস্টমেন্ট কো-অপারেশন সোসাইটি লিমিটেড অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। আবদুল মতিন অনেক সামাজিক সংগঠন। তিনি ব্যবসার উদ্দেশ্যে অস্ট্রেলিয়া, মালয়েশিয়ার, সিঙ্গাপুর, ব্যাংকক, ভারত, ভ্রমণ করেন।

 

 

 

মিসেস সাবিতা ফেরদৌসী, শেয়ারহোল্ডার ডিরেক্টর

মোহাম্মদ আমীরুল ইসলামের স্ত্রী মিসেস সাবিতা ফেরদৌসী ১৯৬৩ সালে চট্টগ্রামে সন্দ্বীপে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে বি.কম ডিগ্রি অর্জন করেন এবং ব্যবসা শুরু করেন। তার বাবা ছিলেন প্রখ্যাত শিল্পপতি এবং সাবেক সংসদ সদস্য, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ, মৃত মোস্তফিজুর রহমান। তিনি কর্ণফুলী বীমা কোম্পানি লিমিটেডের একজন পরিচালকও। তিনি ব্যবসার ১৫ বছরের বেশি অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন।

 

   

জনাব আমিনুর রহমান খান শেয়ারহোল্ডার ডিরেক্টর

মৃত আলী আকবর খানের পুত্র জনাব আমিনুর রহমান খান ১৯৫৩ সালে ঢাকায় একটি সুপ্রতিদ্বন্দ্বী মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ২০০৪ সাল পর্যন্ত ভাইস প্রেসিডেন্ট থেকে সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে সন্ধানী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিতে চাকরি করেন ঐ কোম্পানী ত্যাগ করেন এবং রূপালীতে যোগ দেন। জীবন বীমা কোম্পানির অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে ২০০৯ সাল পর্যন্ত চাকরি করেন। এরপর তিনি সেবার থেকে অবসর গ্রহণ করেন এবং শেয়ারহোল্ডার পরিচালক হিসাবে নির্বাচিত হন। তিনি ১৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে একটি পেশাদারী অভিজ্ঞতা এবং ৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে একটি ব্যবসায়িক অভিজ্ঞতা রয়েছে

 

 

মোঃ সাহানজ বেগম, শেয়ারহোল্ডার ডিরেক্টর

মোহাম্মদ হেলাল উদ্দিনের স্ত্রী মিসেস সাহানজ বেগম একজন সুপ্রতিষ্ঠিত মুসলিম পরিবার থেকে আসে। তিনি ১৯৭০ সালে চট্টগ্রামে সন্দ্বীপে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি একজন সামাজিক কর্মী এবং ২০১০ সাল থেকে কোম্পানির সাথে যুক্ত।

 

শফিকুল ইসলাম, শেয়ারহোল্ডার ডিরেক্টর

 মোহাম্মদ আব্দুল মজিদের ছেলে শফিকুল ইসলাম, ১৯৭০ সালে নারায়ণগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি এম.কম সম্পন্ন করেন এবং ১৯৯৬ সালে ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেডে যোগদান করেন।২০০১ সালে তিনি চাকরি ছেড়ে দিয়ে ব্যবসা শুরু করেন। তিনি একজন সামাজিক কর্মীও। তিনি ১২ বছরেরও বেশি সময় ধরে ব্যবসাতে যুক্ত ছিলেন। তিনি একটি বিশ্বব্যাপী কুরিয়ার সার্ভিসের পরিচালক, স্মার্ট এক্সপ্রেস পরিচালনা করেন।

মো। শামীম খান, ইনডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টর

শামসুল হুদা খানের পুত্র মো:শামীম খান একজন শিক্ষা অনুরাগী মুসলিম পরিবার থেকে আসেছেন। তিনি ১৯৬৫  সালে ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৮৬সালে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি বীমা খাতের মধ্যে ২৮ বছর বেশি ধরে কর্পোরেট ক্যারিয়ারের। তিনি প্রোবেশনারি অফিসারের বিভিন্ন পদে কর্ণফুলী ইন্সুরেন্স কো: লিমিটেড, রূপালী বীমা কো:লিমিটেড এবং গ্রীন ডেল্টা ইন্সুরেন্স কো: লিমিটেডের এক্সিকিউটিভ স্তরে চাকরি করেন। বর্তমানে তিনি গ্রীন ডেল্টা ইন্সুরেন্স কো: লিঃ এর নির্বাহী পরিচালক হিসেবে কাজ করতেছেন। স্বর্ণের ব্যবসা এবং সর্বোচ্চ ব্যবসার জন্য ক্রিস্ট এবং সিঙ্গাপুর, দুবাই, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ব্যাংকক, অস্ট্রেলিয়ার সেরা পারফরম্যান্সের জন্য অনেক বিদেশী সফরে পুরস্কার প্রদান করে। তিনি একজন সামাজিক কর্মীও। তিনি লায়ন্স ক্লাবে ইন্টারন্যাশনালের সদস্য, বাংলাদেশ লাইনের ফাউন্ডেশনের লাইফ সদস্য। তিনি ২০০৬-২০০৭ সালের জন্য লায়ন্স ক্লাব ইন্টারন্যাশনাল ডিস্ট্রিক্ট ৩১৫ বি ২ বাংলাদেশ এর ক্যাবিনেট ট্রেজারার হিসেবে কাজ করেন। ২০০৫থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত তিনি লায়ন্স আই ক্যাম্পের প্রধান সমন্বয়ক ছিলেন। তিনি সিলভা মাইন্ড কন্ট্রোল মেথডের একটি স্নাতক এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে রমনা উশা সংঘ সদস্য, রমনা, ঢাকা।

 

মো:দেলোয়ার হোসেন এফসিএ,ইনডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টর

মোঃ দেলোয়ার হোসেন এফসিএ,মৃত অরশাদ আলীর ছেলে ১৯৬৬ সালে লক্ষ্মীপুর, নোয়াখালীতে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।তিনি ১৯৮৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাববিজ্ঞানে এম.কম সম্পন্ন করেন। তিনি ২০০৫ সালে আইসিএবি'র কাছ থেকে চার্টার্ড একাউন্টেন্ট হিসেবে যোগ্যতা অর্জন করেন। চার্টার্ড অ্যাকাউনটিটি পাস করার আগে তিনি ২০০০  থেকে ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত ৬ বছর বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স কো:লিমিটেডের চীফ ফাইন্যান্সিয়াল অফিসার হিসেবে ১৯৯৯ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত উত্তরণ গ্রুপ অব কোম্পানীর প্রধান আর্থিক কর্মকর্তা এবং অভ্যন্তরীণ অডিট নিযুক্ত হন। তিনি দুবাইয়ে চাকরির জন্য দেশ ত্যাগ করেন এবং ২০০৪ সাল পর্যন্ত সেখানে অবস্থান করেন। তিনি দুবাই থেকে ফিরে আসেন এবং সিএ ফাইনাল পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন এবং ২০০৫ সালে তিনি চার্টার্ড একাউন্টেন্ট হিসেবে যোগ্যতা অর্জন করেন। তিনি ২০১১ সালে দারুল ইশান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এল.এল.বি. (অনার্স) পাস করেন। বর্তমানে তিনি চার্টার্ড একাউন্ট্যান্ট হিসেবে পেশাগত কাজে জড়িত বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড একাউন্ট্যান্টের সহকর্মী সদস্য। তিনি হোসেন দেলোয়ার অ্যান্ড কোম্পানি প্রিন্সিপাল, চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টস। তিনি কর্পোরেট ট্যাক্সেশনে দক্ষতা জ্ঞান, বীমা সংস্থাগুলির নিরীক্ষা, কোম্পানি গঠন নতুন কোম্পানি এবং বিদেশী বিনিয়োগকারী

আবদুল হামিদ, এফসিএ, ইনডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টর

মোঃ আখিল উদ্দিন বেপারির ছেলে আবদুল হামিদ এফসিএ, ১৯৬৬ সালে শ্রীনগর, মুন্সীগঞ্জে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৮৭ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাববিজ্ঞানে এম.কম এবং ICAB থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্টস হিসাবে অনেক পাবলিক লিমিটেড কোম্পানীর বিভিন্ন ক্ষমতার ১৮ বছরেরও বেশি সময় ধরে তার একটি পেশাগত অভিজ্ঞতা রয়েছে। তিনি ইন্স্যুরেন্স ইন্সুরেন্স কো: এর অভ্যন্তরীণ নিরীক্ষা বিভাগ, মেঘনা বীমা কোম্পানির প্রধান আর্থিক কর্মকর্তা, মেঘনা পেট্রলিয়াম লিমিটেডের ম্যানেজার অ্যাকাউন্ট, প্রধান আর্থিক কর্মকর্তা (সহকারী ব্যবস্থাপনা পরিচালক) এবং কোম্পানির সচিব উত্তর জেনারেল বীমা কো: লিমিটেড। এশিয়া এনার্জি কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও চীফ ফিনান্সিয়াল অফিসার বর্তমানে তিনি উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও চীফ ফিনান্সিয়াল অফিসার হিসেবে ইস্টল্যান্ড ইন্স্যুরেন্স কো। লিমিটেড হিসেবে কাজ করছেন। বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অফ চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টস এর সহযোগী সদস্য। তিনি ইন্টারন্যাশনাল অডিটর ইনস্টিটিউটের সদস্যও (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র)।

 মোহাম্মদ আমির কাজিম, এসিএমএ, ইনডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টর

মোহাম্মদ আমির কাজিম, মোহাম্মদ এসএম কাজিম এসিএমএ ছেলে ১৯৭৩ সালে ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন।তিনি কাজী নজরুল সরকারী কলেজ থেকে হিসাববিজ্ঞানে এম.কম সম্পন্ন করেন ১৯৯৭ সালে। তিনি ICMAB থেকে ২০০৯ সালে কস্ট এন্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্টস যেমন যোগ্যতা অর্জন করে।বিভিন্ন গ্রুপের কোম্পানীর ১২ বছরেরও বেশি সময় ধরে তার একটি পেশাদারী অভিজ্ঞতা রয়েছে।